ঢাকা,শুক্রবার, ১ মার্চ ২০২৪

চলতি সপ্তাহে এশিয়ায় কমেছে চালের রফতানি মূল্য

এশিয়ার শীর্ষ হাবগুলোয় চলতি সপ্তাহে চালের রফতানি মূল্য কিছুটা কমেছে। ভারত সাদা চাল রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পর শস্যটির চাহিদা নিম্নমুখী হয়ে পড়েছে। ক্রেতারা নতুন রফতানি চুক্তি করার ক্ষেত্রে ব্যাপক সতর্কতা অবলম্বন করছেন। খবর বিজনেস রেকর্ডার।

শীর্ষ রফতানিকারক ভারত ২০ জুলাই নন-বাসমতি সাদা চালের ওপর রফতানি নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। ২৫ আগস্ট সেদ্ধ চাল রফতানির ওপর ২০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করা হয়। এসব সিদ্ধান্তের কারণে বিশ্ববাজারে শস্যটির দাম ১৫ বছরের সর্বোচ্চে উঠে আসে। গত সপ্তাহে ভারতীয় ৫ শতাংশ ভাঙা সেদ্ধ চালের দাম বেড়ে রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছে। প্রতি টনের মূল্য দাঁড়ায় ৫২০-৫৪০ ডলারে। চলতি সপ্তাহে তা কিছুটা কমে ৫২৫-৫৩৫ ডলারে নেমেছে। রফতানিকারকরা জানান, ২০ শতাংশ রফতানি শুল্ক আরোপের ফলে চালের দাম আরো বেড়ে যায়। ক্রেতারা এ ঊর্ধ্বমুখী দামকে মেনে নিতে পারছেন না।

বিধিনিষেধ অব্যাহত থাকলে ২০২৩-২৪ মৌসুমে ভারতের চাল রফতানি কমে চার বছরের সর্বনিম্নে নামতে পারে। রফতানির পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ১ কোটি ৬৩ লাখ টনে। ফলে ২০২৪-২৫ মৌসুমে ব্রাজিল, উরুগুয়ে ও ভিয়েতনামের রফতানি উদ্বৃত্ত কমে যেতে পারে। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।

এদিকে বাংলাদেশ শিগগিরই সুগন্ধি চালের ওপর থেকে রফতানি নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভালো উৎপাদন ও স্থানীয় বাজারে পর্যাপ্ত মজুদ থাকায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ সাধারণত যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন ও মধ্যপ্রাচ্যে সুগন্ধি চাল রফতানি করে।

এদিকে চলতি সপ্তাহে ভিয়েতনামে ৫ শতাংশ ভাঙা সেদ্ধ চালের রফতানি মূল্য দাঁড়িয়েছে ৬৩০-৬৪০ ডলারে, যা এক মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। গত সপ্তাহের তুলনায়ও দাম কমেছে। ওই সময় প্রতি টন রফতানি হয়েছিল ৬৪০-৬৫০ ডলারে।

হো চি মিং সিটিভিত্তিক ব্যবসায়ীরা জানান, বেশি দামের কারণে ক্রেতারা চাল কিনতে আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। ফলে শস্যটির দাম কমে এসেছে। তথ্য বলছে, ১-১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত হো চি মিন সিটির বন্দরগুলোয় ১ লাখ ২৮ হাজার টন চাল লোডিং করা হয়েছে। বেশির ভাগ চালের রফতানি গন্তব্য ফিলিপাইন, ইন্দোনেশিয়া ও মালয়েশিয়া।

এফএওর দেয়া তথ্যমতে, ২০২৩-২৪ মৌসুমে বিশ্বজুড়ে ৫২ কোটি ৩২ লাখ টন চাল উৎপাদন হতে পারে। ২০২২-২৩ মৌসুমের তুলনায় উৎপাদন ১ দশমিক ১ শতাংশ বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে ২০২১-২২ মৌসুমের তুলনায় উৎপাদন নিম্নমুখী থাকবে।

এফএওর মূল্যসূচক অনুযায়ী, আগস্টে চালের বৈশ্বিক দাম আগের মাসের তুলনায় ৯ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়েছে। মূল্যসূচক দাঁড়িয়েছে ১৪২ দশমিক ৪ পয়েন্টে। সে হিসেবে দাম ১৫ বছরের সর্বোচ্চে উঠে এসেছে।

সংস্থাটির বিশ্লেষণে বলা হয়, ভারত সাদা চাল রফতানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর শস্যটির বৈশ্বিক বাণিজ্য বাধাগ্রস্ত হয়। এ কারণেই বাজারে উল্লম্ফন দেখা দিয়েছে। তার ওপর থাইল্যান্ডে অপর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত বাজারে নতুন করে উদ্বেগের সৃষ্টি করেছে।

এনজে

পাঠকের মতামত: