ঢাকা,শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪

ব্রাজিলে ১৬.৫ শতাংশ খাদ্যশস্য উৎপাদন বাড়ার পূর্বাভাস

ব্রাজিলে ২০২২-২৩ মৌসুমে খাদ্যশস্য উৎপাদন রেকর্ড মাত্রায় বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। দেশটির কৃষকরা সব ধরনের শস্যের আবাদ বাড়িয়েছেন। এর মধ্যে গম ও ভুট্টার মোট উৎপাদন বৃদ্ধিতে প্রধান প্রভাবকের ভূমিকা পালন করবে। খবর ওয়ার্ল্ড গ্রেইন ডটকম।

এ বিষয়ে বিশ্লেষকরা বলছেন, এবার আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় কৃষকরা আবাদ বাড়াতে সক্ষম হয়েছেন। ফলে শস্যের ফলনও ভালো হচ্ছে। দেশটিতে রেকর্ড উৎপাদন বৈশ্বিক সরবরাহ চাঙা রাখতে সাহায্য করবে।

ব্রাজিলের খাদ্য সরবরাহ ও পরিসংখ্যান সংস্থা কোনাব সম্প্রতি একটি সমীক্ষা প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এ প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২২-২৩ মৌসুমে ব্রাজিলে ৩১ কোটি ৭৫ লাখ টন খাদ্যশস্য উৎপাদন হতে পারে। আগের মৌসুমের তুলনায় উৎপাদন বাড়তে পারে ৪ কোটি ৪৯ লাখ টন বা ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ।

এর আগে জুনে উৎপাদনসংক্রান্ত একটি সমীক্ষা চালিয়েছিল কোনাব। তখনকার হিসাবের তুলনায় উৎপাদন দশমিক ৬ শতাংশ বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এর প্রধান কারণ ভুট্টা ও গমের ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন। এর মধ্যে মৌসুমের দ্বিতীয় ধাপে ভুট্টা উৎপাদন আগের মাসের তুলনায় বাড়বে বলে প্রত্যাশা করছে কোনাব। এছাড়া আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গমের উৎপাদনও ভালো হবে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

কোনাবের প্রেসিডেন্ট এডগার প্রেটো বলেন, নতুন সমীক্ষায় উৎপাদন রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ব্রাজিলের কৃষি খাত আগের চেয়ে শক্তিশালী হয়েছে। উৎপাদনের পরিমাণ ক্রমেই বাড়ছে। এ খাতে অব্যাহত বিনিয়োগ উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করছে।

এদিকে ভুট্টা ও গমের পাশাপাশি সয়াবিন উৎপাদনও বাড়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। নতুন সমীক্ষায় তেলবীজটির উৎপাদন ধরা হয়েছে ১৫ কোটি ৪৬ লাখ টন। আগের বছরের তুলনায় উৎপাদন ২ কোটি ৯০ লাখ টন বা ২৩ দশমিক ১ শতাংশ বাড়তে পারে।

পাঠকের মতামত: