ঢাকা,রোববার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

৪ শতাংশ বাড়তে পারে থাইল্যান্ডের চাল রফতানি

থাইল্যান্ডের ‍চাল রফতানি ২০২২-২৩ মৌসুমে ২০২১-২২ মৌসুমের তুলনায় ৪ শতাংশ বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। রফতানির পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ৮৫ লাখ টনে। আমদানিকারক দেশগুলো থেকে ব্যাপক চাহিদা এবং অফ সিজনে ঊর্ধ্বমুখী উৎপাদন রফতানি বাড়াতে সহায়তা করছে। মার্কিন কৃষি বিভাগের ফরেন এগ্রিকালচারাল সার্ভিসের গ্লোবাল এগ্রিকালচারাল ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

ভারত চালের ওপর বিধিনিষেধ আরোপ করার পরই থাই চালের চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে। বিশেষ করে সাম্প্রতিক মাসগুলোয় চাহিদা লক্ষণীয় মাত্রায় বেড়েছে। ২০২২-২৩ মৌসুমে ভারত চাল রফতানিতে বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষস্থানে অবস্থান করবে। দেশটিতে চাল উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ২ কোটি ২ লাখ টনে, যা আগের বছরের চেয়ে ৫ শতাংশ বেশি। চাল উৎপাদনে দেশটি সপ্তম শীর্ষস্থানে অবস্থান করবে।

তবে ২০২৩-২৪ মৌসুমে দেশটিতে চাল উৎপাদন ৬ শতাংশ কমে ১ কোটি ৯৬ লাখ টনে নামার আশঙ্কা রয়েছে। সেচের জন্য পানির প্রাপ্যতা সংকট, অফ সিজনসহ নানা কারণে উৎপাদন কমে যেতে পারে।

থাইল্যান্ড প্রতি বছর সাধারণত প্রায় দুই কোটি টন চাল উৎপাদন করে। এর মধ্যে অর্ধেক স্থানীয়ভাবে ব্যবহার করা হয়। বাকি অর্ধেক রফতানি করা হয়।

পাঠকের মতামত: