ঢাকা,রোববার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪

বৈশ্বিক বাজারে ফের বেড়েছে জ্বালানি তেলের দাম

বৈশ্বিক বাজারে সোমবার ফের বেড়েছে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের ব্যাংকগুলো সুদহার আবারো বাড়াতে পারে বলে মনে করছেন অনেক ব্যবসায়ী। এর পরও দাম বাড়ার কারণ সরবরাহ সংকুচিত হয়ে ওঠার পাশাপাশি চীনে জ্বালানি তেলের চাহিদা বৃদ্ধির প্রত্যাশা। খবর রয়টার্স।

আইসিই ফিউচারসে গতকাল অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের আন্তর্জাতিক বাজার আদর্শ ব্রেন্টের দাম ৪৪ সেন্ট বা দশমিক ৬ শতাংশ বেড়েছে। প্রতি ব্যারেলের মূল্য স্থির হয়েছে ৮১ ডলার ৫১ সেন্ট। অন্যদিকে নিউইয়র্ক মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জে (নিমেক্স) ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েটের (ডব্লিউটিআই) দাম ৪৪ সেন্ট বা দশমিক ৫ শতাংশ বেড়েছে। প্রতি ব্যারেলের মূল্য স্থির হয়েছে ৭৭ ডলার ৫১ সেন্টে।

সপ্তাহের হিসাবে ব্রেন্টের দাম ১ দশমিক ৫ শতাংশ এবং ডব্লিউটিআইর দাম ২ দশমিক ২ শতাংশ বেড়েছে। এ নিয়ে টানা চার সপ্তাহ উভয় বাজার আদর্শের দাম বাড়ল। ওপেক প্লাসের উত্তোলন কমিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্তে জ্বালানি তেল সরবরাহ সংকুচিত হয়ে আসছে। এ কারণেই দাম বাড়ছে।

এদিকে ইউক্রেনের সঙ্গে করা কৃষ্ণ সাগরীয় খাদ্যশস্য চুক্তি থেকে রাশিয়া সরে আসার পর উভয় দেশের মধ্যে যুদ্ধ আরো তীব্র আকার ধারণ করেছে। বিষয়টিও জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক সরবরাহ ধারাকে ব্যাহত করছে বলে জানান বিশ্লেষকরা।

এদিকে চলতি বছরের জন্য অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক চাহিদা পূর্বাভাস বাড়িয়েছে রফতানিকারক দেশগুলোর জোট ওপেক। অর্থনীতির গতি শ্লথ হয়ে পড়ার আশঙ্কা সত্ত্বেও আগামী বছরের চাহিদা নিয়ে আশাবাদী জোটটি। কারণ চীন ও ভারত অব্যাহত জ্বালানির ব্যবহার বাড়াচ্ছে।

মাসভিত্তিক এক প্রতিবেদনে ওপেক জানায়, চলতি বছর অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের বৈশ্বিক চাহিদা দৈনিক ২৪ লাখ ৪০ হাজার ব্যারেল করে বাড়তে পারে। আগামী বছর চাহিদা প্রবৃদ্ধির হার দাঁড়াবে দৈনিক ২২ লাখ ৫০ হাজার ব্যারেলে।

আন্তর্জাতিক জ্বালানি সংস্থাও আগামী বছর অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের চাহিদা বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে। তবে সংস্থাটির পূর্বাভাসের তুলনায় ওপেক প্লাসের পূর্বাভাস দ্বিগুণ বেশি।

পাঠকের মতামত: