ঢাকা,সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪

অব্যাহত বাড়ছে অস্ট্রেলিয়ান কাজুবাদামের বাজার

১৮৩৬ সালে অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম কাজুবাদামের গাছ রোপণ করা হয়। এরপর কালের বিবর্তনে দেশটিতে এটির উৎপাদন পাল্লা দিয়ে বেড়েছে। বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া উত্তর গোলার্ধে শীর্ষ কাজুবাদাম উৎপাদক দেশে পরিণত হয়েছে। নিউ সাউথ ওয়েলস, ভিক্টোরিয়া, দক্ষিণ ও পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ায় ৫৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে ১ কোটি ৭০ লাখেরও বেশি কাজুবাদাম গাছ আছে। ২০২৫ সাল নাগাদ অস্ট্রেলিয়ায় কাজুবাদাম শিল্পের বাজার দাঁড়াবে ১৩০ কোটি ডলারে। অস্ট্রেলিয়ার সরকারি এক ওয়েবসাইটে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।

স্বাদ ও গুণগত মানের কারণে অস্ট্রেলিয়ান কাজুবাদামের বিশ্বজোড়া খ্যাতি আছে। ২০২০-২১ মৌসুমে দেশটি ৫৪ কোটি ৫০ লাখ ডলারের কাজুবাদাম রফতানি করেছে। এর মধ্যে ৬৭ শতাংশই রফতানি করা হয়েছে এশিয়া-প্যাসিফিক ও ওশেনিয়া মহাদেশের দেশগুলো। পণ্যটি রফতানির ক্ষেত্রে অস্ট্রেলিয়ার শীর্ষ চার বাজার চীন, ভারত, ভিয়েতনাম ও নিউজিল্যান্ড।

গত এক দশকে অস্ট্রেলিয়ার কাজুবাদাম রফতানি ২১৩ শতাংশ বেড়েছে। ২০২১-২২ মৌসুমে রফতানি আগের মৌসুমের মতোই স্থিতিশীল ছিল। ইউরোপের বাজারে রফতানি ২৪ শতাংশ ও মধ্যপ্রাচ্যে ৪৩ শতাংশ বেড়েছে। এছাড়া ভারত, থাইল্যান্ড, সংযুক্ত আরব আমিরাত, স্পেন ও ফ্রান্সেও লক্ষণীয় মাত্রায় রফতানি বাড়াতে সক্ষম হয়েছে দেশটি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, স্বাস্থ্যসচেতন ভোক্তারাই চাহিদা বৃৃদ্ধিতে প্রধান প্রভাবকের ভূমিকা পালন করছেন। কভিডকালে ভারতের মতো বাজারগুলোয় পণ্যটির চাহিদা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। কারণ কাজুবাদাম রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে সক্ষম।

পাঠকের মতামত: